x 
Empty Product

ত্রাণের সঙ্গে আম, লিচুসহ দেশীয় ফল দেওয়ার অনুরোধ করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম।

 

 

শনিবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভা সম্মেলন কক্ষ থেকে করোনা উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আম, লিচুসহ মৌসুমি ফল এবং কৃষিপণ্য বাজারজাতকরণ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সাথে অনলাইনে (জুম প্ল্যাটফর্মে) মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

 

তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে আমের ভাল দাম না পাওয়ায় রাজশাহীতে আম চাষ কমে যাচ্ছে। আমে ফরমালিন বা ক্ষতিকর কিছু নেই মর্মে জনগণকে সচেতন ও আশ্বস্ত করতে হবে। ত্রাণ হিসেবে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীতে আম, লিচুসহ মৌসুমি ফল অন্তর্ভূক্ত করার জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের নিকট অনুরোধ জানানোর পরামর্শ দেন তিনি।

 

ভিডিও ক্লিপের মাধ্যমে সকল গণমাধ্যমে প্রচারণা চালানোর পরামর্শও দেন তিনি।

 

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক সভায় সভাপতিত্ব করেন।

এসময় কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ডা. আ ফ ম রুহুল হক, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জের সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহম্মেদ শিমুল, কৃষি ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ,এবং জাতিসংঘের কৃষি ও খাদ্য সংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি রবার্ট সিম্পসন অনলাইনে সংযুক্ত ছিলেন। সভাটি সঞ্চালনা করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: নাসিরুজ্জামান।

 

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://www.risingbd.com

জেলা প্রশাসনের বেঁধে দেয়া সময় অনুযায়ী ১৫ মে (শুক্রবার) থেকেই গুটি জাতের আম নামানোর কথা ছিলো। তবে প্রথম দিনে রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার বাগানগুলোতে আম নামানোর খবর পাওয়া যায়নি।

তবে আম না নামানোর বিষয়ে চাষি ও ব্যবসায়ীদের ভাষ্য, করেনা আতঙ্কে মানুষই বের হতে পারছে না, সেখানে আম পেড়ে বিক্রি করবো কোথায়। অন্য দিকে গুটি জাতের আম এথনো পরিপক্কতা আসেনি বলে দাবি উপজেলায় চাষি ও ব্যবসায়ীদের।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গুটি আমের কেবল আঁটি হয়েছে। পরিপক্বতা আসেনি এখনো। তাই চাষিরা আম নামাচ্ছেন না। করোনা সংকটকালে বাজার না পাওয়ার আশঙ্কায় চাষিদের তড়িঘড়ি আম নামানোরও ব্যস্ততা নেই। অথচ আগের বছরগুলোতে চাষিরা এই দিনটির জন্য অপেক্ষা করতেন। বাগানে বাগানে শুরু হতো আম নামানোর উৎসব।

উপজেলার কালুহাটি এলাকার চাষি বাহাদুর রহমান বলেন, আমার গুটি আম খুব বেশি নেই। প্রশাসনের বেঁধে দেয়া সময় অনুযায়ী এখন গুটি আম পাড়া যাবে। তবে আম এখনও পাড়ার মতো হয়নি। গুটি আম আরও অন্তত ১০-১৫ দিন পর নামানো হলে আমের পরিপক্বতা আসবে।

তিনি বলেন, এবার বাজারের যে অবস্থা তাতে আম কখন নামালে ঠিক হবে সেটাও বুঝতে পারছি না। আবার এবার আম পাড়ার সময়টাও ঠিকমতো নির্ধারণ হয়নি। আম পাড়ার সময় কিছুটা আগেই নির্ধারণ করা হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুনজুর রহমান বলেন, কৃষিপণ্য লকডাউনের বাইরে। তাই বাজারজাত করতে সমস্যা হবে না। গাছে যখন আম পাকবে তখনই চাষিরা বাজারে নিতে পারবেন।


উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দা সামিরা বলেন, আম পরিপক্বতা না হলে আম নামাবেন না চাষি ও ব্যবসায়ীরা। তবে আমে ক্যামিকেলের মিশ্রণ ঘটিয়ে কেউ অপরিপক্ব আম নামানোর চেষ্টা করলে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গ শুক্রবার (১৫ মে) থেকে গুটি আম পাড়ার সময় শুরু হয়েছে। আগামী ২০ মে থেকে গোপালভোগ নামাতে পারবেন চাষিরা। এছাড়া রানীপছন্দ ও লক্ষণভোগ বা লখনা ২৫ মে, হিমসাগর বা খিরসাপাত ২৮ মে, ল্যাংড়া ৬ জুন, আম্রপালি ১৫ জুন এবং ফজলি ১৫ জুন থেকে নামানো যাবে। সবার শেষে ১০ জুলাই থেকে নামবে আশ্বিনা এবং বারী আম-৪ জাতের আম। সম্প্রতি জেলা প্রশাসন এই সময় নির্ধারণ করে দেয়।


এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://bn.observerbd.com/

সাতক্ষীরার বাজারে পাকা আম উঠতে শুরু করেছে। কিন্তু করোনার প্রভাবে ক্রেতা যেমন কম, তেমনি দামও। ফলে দুঃশ্চিন্তা ভর করেছে আম বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীদের মাঝে। আর রপ্তানি বন্ধ থাকায় বিষমুক্ত আম উৎপাদনকারী বাগান মালিকরা পড়েছেন চরম বিপাকে।

কৃষি বিভাগ বলছে, আম ব্যবসা যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সেজন্য জেলার বাইরে বিক্রি ও পরিবহনের ব্যবস্থা করবে প্রশাসন।

সাতক্ষীরার সদর, তালা, কলারোয়া দেবহাটা উপজেলায় সর্বাধিক আমের বাগান রয়েছে। এরমধ্যে ১শ হেক্টর জমিতে রপ্তানিযোগ্য বিষমুক্ত নিরাপদ আম চাষ করা হয়েছে। এবার পর্যাপ্ত মুকুল আসলেও আশানুরুপ ফলন হয়নি।বিদেশে রপ্তানির কথা থাকলেও করোনার কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না। পাশাপাশি উৎপাদিত আমের দরও কমে গেছে। এ অবস্হায় চরম দুঃশ্চিন্তায় বাগান মালিকরা।

সাতক্ষীরা কৃষি বিভাগের মাঠ কর্মকর্তা রঘুজিত কুমার গুহ বলছেন, আম রফতানি করতে না পারায় ক্ষতিগ্রস্ত হবে বাগান মালিকরা।
করোনার প্রভাবে বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীরা লোকসানের মুখে পড়বে বলে মনে করেন সাতক্ষীরা কাঁচা বাজার ব্যবসায়ী সমিতি সাধারণ সম্পাদক রওশন আলী।

তবে আম বাগান মালিকদের আতংকের কথা স্বীকার করে সাতক্ষীরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপ পরিচালক নুরুল ইসলাম জানান, জেলার বাইরে আম পাঠাতে পরিবহনের ব্যবস্থা করবে প্রশাসন।

জেলার ৪ হাজার হেক্টর জমিতে ৫ হাজারের বেশি বাগানে এবার ৪০ হাজার মেট্রিক টন আম উৎপাদন হবে বলে আশা কৃষি বিভাগের।

 

 

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://www.somoynews.tv

পৃথিবীতে অদ্ভুত অদ্ভুত সব কতই না ঘটনার কথা শোনা গেছে ইতোপূর্বে। অদ্ভুত জিনিসের প্রতি মানুষেরও আগ্রহ চিরকালের। তেমনি এবার মুরগি ‘আম’ আকৃতির ডিম পাড়ার মত এক অদ্ভুত ঘটনা ঘটেছে আমাদের দেশেই।

অদ্ভুত এ ঘটনাটি ঘটেছে বান্দরবানের লামা পৌরসভা এলাকার চাম্পাতলী পাড়ারের বাসিন্দা ও উপ-সহকারী প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মহসিন রেজার ঘরে।

 

এলাকার উৎসুক জনতা মুরগির এই আমের মতো পারা ডিম দেখতে গত দুদিন ধরে ভিড় জমাচ্ছেন প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বাড়িতে। প্রাণী বিশেষজ্ঞদের মন্তব্য, ইতোপূর্বে এরকম আকৃতির ডিম তারা দেখেননি।

মুরগির মালিক মহসিন রেজা জানান, ডিম পাড়া কালো রংয়ের মুরগিটির বয়স এক বছর। প্রথমদিকে মুরগিটি স্বাভাবিক আকৃতির ডিম পারতো। কিন্তু গত তিনদিন মুরগিটি ঠিক আমের আকৃতির ডিম পাড়ছে। তবে ডিমের ভেতর কুসুম অন্য ডিমের মতোই স্বাভাবিক।

‘‘মুরগিটি এ পর্যন্ত ৩টি ডিম পেরেছে আমের আকৃতির। আম আকৃতির ডিম পাড়ার খবরটি ছড়িয়ে পড়লে এক নজর ডিমটি দেখার জন্য বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছেন স্থানীয়রা।’’

তিনি আরো বলেন, আম আকৃতির ডিম পাড়ার বিষয়টি প্রাণিসম্পদ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে। অদ্ভুত আকৃতির ডিমগুলো গবেষণার জন্য ঢাকায় প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ে পাঠানো হবে বলেও জানান তিনি।

এ বিষয়ে জেলার লামা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ড. মুহাম্মদ ইসহাক আলী বলেন, এ রকম ঘটনা খুবই কম। তবে মুরগির খাবারে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ কম হলে বা ডিম পাড়ার আগ মুহূর্তে কোনো সমস্যা হলে এমন ডিম পাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাছাড়া অন্য সমস্যার কারণেও এ রকম হতে পারে।

 

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://www.newsg24.com

নিরাপদ, বালাইমুক্ত আম উৎপাদন করেও গেল বছর বিদেশে রপ্তানি করতে পারেননি রাজশাহীর বেশিরভাগ চাষি। কোয়ারেন্টাইন পরীক্ষার কড়াকড়িতে তার আগের বছর আম পাঠানো সম্ভব হয়েছিল খুব সামান্যই। বিদেশের বাজার ধরতে চলতি বছরেও বেশ কয়েকজন চাষি ব্যাগিং পদ্ধতিতে আম উৎপাদন করছেন। তবে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে অনিশ্চিত বিদেশে আম পাঠানো।

 

 

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামসুল হক বলেন, এবার বিমান বন্ধ। আম রপ্তানির কী যে হবে তা বুঝতে পারছি না! বিদেশে আম রপ্তানি করতে চান, এমন কোনো ব্যবসায়ী এ পর্যন্ত আমাদের সাথে যোগাযোগ করেননি। তবে আমরা আমাদের প্রস্তুতি রাখছি। বেশ কয়েকজন চাষি উন্নত প্রযুক্তিতে আম উৎপাদন করছেন। পরিস্থিতি কোন দিকে যায় তা আর ক’দিন পর বোঝা যাবে।

 

বিদেশে রপ্তানির জন্য জেলায় এবার এক লাখ ১৫ হাজার আম ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে চাষ করার লক্ষ্যমাত্রা ধরেছে কৃষি বিভাগ। এর মধ্যে বাঘা উপজেলার পাকুড়িয়া এলাকায় শফিকুল ইসলাম সানা নামের এক চাষি ১০ হাজার আমে ব্যাগিং করেছেন। পবার হরিপুর, কসবা এবং রাজশাহী মহানগরীর জিন্নানগরেও কিছু আম ব্যাগিং করা হয়েছে। কিন্তু চাষিরা রয়েছেন অনিশ্চয়তায়। তাই অতিরিক্ত টাকা খরচ করে বেশি পরিমাণ আমে ব্যাগিং করার সাহস পাচ্ছেন না তারা।

 

জিন্নানগরে ১০ হাজার খিরসাপাত ও ল্যাংড়া আমে ব্যাগিং করেছেন রাজশাহী এগ্রো ফুড প্রডিউসার সোসাইটির আহ্বায়ক আনোয়ারুল হক। তিনি বলেন, এখনও পর্যন্ত রপ্তানিকারক কোনো প্রতিষ্ঠান আমাদের সাথে যোগাযোগ করেননি। তারপরেও উন্নত প্রযুক্তিতে নিরাপদ ও বালাইমুক্ত কিছু আম উৎপাদন করছি। বিদেশে পাঠাতে না পারলেও দেশেই যদি ঠিকমতো আম বাজারজাত করা যায় তাহলে হয়তো লোকসান হবে না। সে আশাতেই করছি। জানি না কী হবে!

 

গত বছর ৪০ হাজার আমে ব্যাগিং করেছিলেন আনোয়ারুল হক। বাংলাদেশে নিযুক্ত তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার কানবার হোসেন বর আনোয়ারুলের বাগানে যান। নিজ হাতে আম পেড়ে খান। বলেছিলেন, রাজশাহীর আম খুব সুস্বাদু। স্বাস্থ্যসম্মত। কিন্তু আনোয়ারুল বিদেশে আম পাঠাতে পারেননি। বাধ্য হয়ে দেশের বাজারেই ব্যাগিং করা ৪০ হাজার আম ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করেন তিনি।

 

আনোয়ারুল বলেন, সর্বশেষ ২০১৬ ও ২০১৭ সালে ঠিকমতো আম ইউরোপের বাজারে পাঠানো সম্ভব হয়েছিল। ২০১৮ এবং ২০১৯ সালে ঢাকায় প্ল্যান কোয়ারেন্টাইন উইং সেন্ট্রাল প্যাকিং হাউসে কোয়ারেন্টাইনের নামে খুব কড়াকড়ি শুরু হয়। সামান্য দাগ থাকলেই আম বাদ দেয়া শুরু হয়। ফলে তারা আম পাঠাতে পারেননি। এবারও করোনার কারণে হয়তো পারবেন না।

 

আশার বাণী শোনাতে পারেনি কৃষি বিভাগও। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামসুল হক বলেন, গতবার তো ৩৬ মেট্রিক টন আম পাঠানো সম্ভব হয়েছিল। এবার কি হবে তা এখনই বলা যাচ্ছে না। তবে চাষিরা ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে আম চাষ করছেন। আম নামানোর দুই মাসে আমে ব্যাগ পরাতে হয়। এক মাস আগে কিছু খিরসাপাতে ব্যাগিং করা হয়েছে। কিছু দিন পর ল্যাংড়া, ফজলি ও আশি^নায় ব্যাগিং করা হবে।

 

রাজশাহী জেলায় আম বাগান রয়েছে ১৭ হাজার ৬৮৬ হেক্টর জমিতে। এবার আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ লাখ ১০ হাজার মেট্রিক টন। অপরিপক্ব আম নামানো ঠেকাতে গেল কয়েক বছরের মতো এবারও আম নামানোর সময় নির্ধারণ করে দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

 

সে অনুযায়ী গাছে পাকলেই শুক্রবার (১৫ মে) থেকে সব ধরনের গুটি আম নামানোর সময় শুরু হয়েছে। কিন্তু চাষিদের গাছে এবার আম পাকেনি। কেবল আঁটি এসেছে। আরও অন্তত দুই সপ্তাহ লাগবে পরিপক্ক হতে। তাই এখনই আম ভাঙছেন না রাজশাহীর চাষিরা। বাজারেও নেই আম।

 

বেঁধে দেয়া সময় অনুযায়ী, আগামী ২০ মে থেকে গোপালভোগ নামাতে পারবেন চাষিরা। এছাড়া রানীপছন্দ ও লক্ষণভোগ বা লখনা ২৫ মে, হিমসাগর বা খিরসাপাত ২৮ মে, ল্যাংড়া ৬ জুন, আম্রপালি ১৫ জুন এবং ফজলি ১৫ জুন থেকে নামানো যাবে। সবার শেষে ১০ জুলাই থেকে নামবে আশ্বিনা এবং বারী আম-৪ জাতের আাম।

 

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://www.dhakatimes24.com

বর্তমানে বৈশ্বিক মহামারী করোনার প্রভাবে বাংলাদেশের শাকসবজি ও মৌসুমি ফলসহ কৃষিপণ্যের পরিবহন এবং বাজারজাতকরণে বিরূপ প্রভাব পড়ছে। কৃষকেরা তাদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য বিক্রি করতে পারছে না। বড় শহরের বাজারে ক্রেতার আগমন প্রায় না থাকায় ও জনগণের আয় হ্রাস পাওয়ার কারণে বাজারে কৃষিপণ্যের চাহিদা হ্রাস পেয়েছে, ফলে পাইকার ও আড়তদাররা কৃষিপণ্য ক্রয়ে আগ্রহ হারাচ্ছে।

 

কৃষিপণ্য পরিবহন শেষে ট্রাক খালি ফেরার আশঙ্কায় ভাড়া দ্বিগুণ হয়ে যাচ্ছে। এ সকল কারণে ক্ষেতেই নষ্ট হচ্ছে বেশির ভাগ উৎপাদিত ফল ও সবজি। এমন পরিস্থিতিতে আম লিচু বাজারজাত করতে নানান উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

 

কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, করোনা পরিস্থিতিতে কৃষিপণ্যের বিপণন এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসব বিষয় অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে বিবেচনায় নিয়ে কৃষি মন্ত্রণালয় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

 

কৃষিমন্ত্রী শনিবার মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষ থেকে করোনা উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আম, লিচুসহ মৌসুমি ফল এবং কৃষিপণ্য বাজারজাতকরণ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সাথে অনলাইনে (জুম প্ল্যাটফর্মে) মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন।

 

এ সভায় কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, নৌপরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহ্‌মুদ চৌধুরী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহ্‌রিয়ার আলম, আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনা‌ইদ আহ্‌মেদ পলক, জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ডা. আ ফ ম রুহুল হক, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান, চাঁপাই নবাবগঞ্জের সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহম্মেদ শিমুল, কৃষি ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ এবং জাতিসংঘের কৃষি ও খাদ্য সংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি রবার্ট সিম্পসন অনলাইনে সংযুক্ত ছিলেন। সভাটি সঞ্চালনা করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: নাসিরুজ্জামান।

 

কৃষিমন্ত্রী বলেন, করোনার কারণে তরমুজ চাষিরা উৎপাদিত তরমুজের অধিকাংশই বিক্রি করতে পারেনি। যা বিক্রি করেছে তার ভালো দামও পায়নি। ইতোমধ্যে আম, লিচু, আনারস, কাঁঠালসহ মৌসুমি ফল বাজারে আসতে শুরু করেছে। এসব মৌসুমি ফল সঠিকভাবে বাজারজাত না করা গেলে চাষিরা আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

 

আবার, দেশের অধিকাংশ মানুষ সুস্বাদু ও পুষ্টিকর মৌসুমি ফল খাওয়া থেকে বঞ্চিত হবে। অথচ এই সময়ে করোনা মোকাবেলায় দৈহিক রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে মৌসুমি পুষ্টিকর ফল গ্রহণ করা অত্যন্ত জরুরি।

 

সাবেক কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেন, ট্রাকসহ অন্যান্য পরিবহনের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করার উদ্যোগ নিতে হবে। ট্রাকের জ্বালানির ক্ষেত্রে ভর্তুকি দেয়া যেতে পারে যাতে ট্রাকের ভাড়া কম হয়। পুলিশ ব্যারাক, সেনাবাহিনীর ব্যারাক, হাসপাতাল, জেলখানাসহ বিভিন্ন সরকারি অফিসে কৃষকের কাছ থেকে আম কিনে সরবরাহ করা গেলে আমের বাজারজাতকরণে কোন সমস্যা হবে না বলেও তিনি মনে করেন। তিনি বলেন, এই সংকটের সময়ে কৃষকের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে হবে।

 

খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, ব্যবসায়ী, আড়তদার ও ফড়িয়ারাদের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে পরিচয় পত্র ইস্যু এবং ব্যাংকের লেনদেনের সময়সীমা বাড়াতে হবে। এই মধু মাসে বিদেশি ফল যেমন আপেল, আঙ্গুর প্রভৃতি আমদানি কমানোর পদক্ষেপ নেয়া যেতে পারে।

 

করোনার সময়ে সকল ধরনের কার্গো লঞ্চ চালু আছে জানিয়ে নৌপরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহ্‌মুদ চৌধুরী বলেন, শুধু আম-লিচু নয়, সব মৌসুমি ফলের বাজারজাতকরণে ব্যবস্থা নিতে হবে। তিনি বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে সম্পৃক্ত করে আন্তর্জাতিক বাজার ধরতে হবে, তা নাহলে চাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

 

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহ্‌রিয়ার আলম বলেন, গত কয়েক বছরে আমের ভালো দাম না পাওয়ায় রাজশাহীতে আম চাষ কমে যাচ্ছে। ব্যবসায়ী ও ফড়িয়ারাদের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে পরিচয়পত্র ইস্যু, তাদের যাতায়াতে হয়রানি কমানো, ব্যাংকের লেনদেনের সময়সীমা বাড়ানো, এবং বিশেষ করে আমে ফরমালিন বা ক্ষতিকর কিছু নেই মর্মে জনগণকে সচেতন ও আশ্বস্ত করতে হবে বলে তিনি জানান। ভিডিও ক্লিপের মাধ্যমে সকল গণমাধ্যমে প্রচারণা চালানোর পরামর্শও প্রদান করেন তিনি।

 

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক বলেন, আগামী ৩-৪ দিনের মধ্যে প্রযুক্তি নির্ভর ‘এক শপ’ অ্যাপস চালু করা হবে যার মাধ্যমে সারা দেশের চাষিরা পণ্য বেচাকেনা করতে পারবে। এর মাধ্যমে চাষিদের পণ্য এনে মেগাশপের পাশাপাশি ডোর টু ডোর গ্রাহকের কাছে পৌঁছে দেয়া যাবে।

 

ড. আতিউর রহমান বলেন, স্থানীয় মার্কেটে আমের চাহিদা বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে। কৃষিখাতে অতিরিক্ত বাজেটের প্রয়োজন হলে এখনই ব্যবস্থা নিতে হবে।
বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সভাপতি তাজুল ইসলাম বলেন, এই সংকটের সময় তারা পাশে থেকে কাজ করবে। আম-লিচু পরিবহণের কোন সংকট হবে না বলেও তিনি আশ্বস্ত করেন।

 

কৃষিমন্ত্রী জানান, আজকের সভায় পাওয়া সুপারিশ অনুযায়ী:

 

১. হাওরে ধান কাটা শ্রমিকদের যেভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠানো হয়েছে, তেমনি অন্যান্য জেলা হতে ব্যবসায়ী, আড়তদার ও ফড়িয়ারাদের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করা, প্রয়োজনে তাদেরকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রত্যয়নপত্র প্রদান ও নিরাপদ আবাসনের ব্যবস্থা নেয়া।
২. মৌসুমি ফল এবং কৃষিপণ্য পরিবহণে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ট্রাক ও অন্যান্য পরিবহনের অবাধে যাতায়াত নির্বিঘ্ন করা, পরিবহণের সময় যাতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী মাধ্যমে কোনরূপ হয়রানির শিকার না হয় সে ব্যবস্থা করা।
৩. বিআরটিসির ট্রাক ব্যবহারে উদ্যোগ নেয়া।
৪. স্থানীয়ভাবে ব্যাংকের লেনদেনের সময়সীমা বাড়ানো,
৫. পার্সেল ট্রেনে মৌসুমি ফল এবং কৃষিপণ্য পরিবহণের আওতা বাড়ানো, হিমায়িত ওয়াগন ব্যবহার করা যায় কিনা সেদিকে নজর দেয়া
৬. ফিরতি ট্রাকের বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোল হ্রাস করা
৭. ত্রাণ হিসেবে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীতে আম, লিচুসহ মৌসুমি ফল অন্তর্ভূক্ত করার জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের নিকট অনুরোধ জানানো।
৮. অনলাইনে এবং ভ্যানযোগে ছোট ছোট পরিসরে কেনাবেচার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করা
৯. প্রাণ, একমি,  ব্র্যাকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং স্থানীয় প্রতিষ্ঠান যারা কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাত করে জুস, ম্যাঙ্গোবার, আচার, চাটনি প্রভৃতি তৈরি করে, তাদেরকে এবছর বেশি বেশি আম-লিচু কেনার অনুরোধ জানানো হয়েছে। তারা এ বছর বেশি করে আম কিনবেন বলে জানিয়েছেন।
১০. মৌসুমি ফলে যেন কেমিক্যাল ব্যবহার করা না হয় সেজন্য জেলা প্রশাসন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এবং কৃষি বিপণন অধিদপ্তর সমন্বিতভাবে মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার করাসহ‌ সুপারিশগুলো অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

 

সভায় জানানো হয়, এ বছর ১ লাখ ৮৯ হাজার হেক্টর জমিতে আমের আবাদ হয়েছে এবং প্রত্যাশিত উৎপাদন ২২ লক্ষ ৩২ হাজার মেট্রিকটন। রাজশাহী, নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, সাতক্ষীরা, নাটোর, গাজীপুর এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের জেলাগুলোতে অধিকাংশ আমের ফলন হয়।

 

লিচুর আবাদ হয়েছে প্রায় ৩২ হাজার হেক্টর জমিতে এবং প্রত্যাশিত উৎপাদন ২ লাখ ৩২ হাজার মেট্রিক টন। অধিকাংশ লিচুর ফলন হয় রাজশাহী, দিনাজপুর, পাবনা, গাজীপুর এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের জেলায়। কাঁঠালের আবাদ হয়েছে ৭১ হাজার ৭০০ হেক্টর জমিতে ও সম্ভাব্য উৎপাদন ১৮ লাখ ৮৯ হাজার মেট্রিক টন। টাঙ্গাইল, গাজীপুর ও রাঙ্গামাটিতে সবচেয়ে বেশি কাঁঠাল উৎপাদন হয়। অন্যদিকে, আনারসের আবাদ হয়েছে ২০ হাজার ১২০ হেক্টর জমিতে ও সম্ভাব্য উৎপাদন ৪ লাখ ৯৭ হাজার মেট্রিক টন। আনারসের সিংহভাগ উৎপাদন হয় টাঙ্গাইলে।

 

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://www.channelionline.com

আবহাওয়া ভালো থাকায় পাহাড়ে এবার আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। প্রায় ৮০০ কোটি টাকার আম। তবে শেষ পর্যন্ত এই আম বাজারে পৌঁছানো যায় কিনা তা নিয়ে উদ্বেগ। আমবাগানের মালিকদের পাশাপাশি ছোটখাটো বাগানের চাষিদের মাঝেও এখন অনিশ্চয়তা।
বাগান সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে আম পাকতে শুরু করবে। তবে করোনার অভিঘাতে বাজার ব্যবস্থাপনায় সংকট হলে চাষিদের কপালে দুঃখ আছে। কোটি কোটি টাকার ফলন নষ্ট হয়ে যাবে। তাই গাছের আম যথাযথভাবে বাজারে পৌঁছানোর উদ্যোগ নেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তারা।
পার্বত্য চট্টগ্রামের বান্দরবান, খাগড়াছড়ি ও রাঙামাটির পাহাড়ে আমের প্রচুর ফলন হয়। একসময় সনাতন পদ্ধতিতে আম চাষে ফলন বেশি পাওয়া যেত না। পরবর্তীতে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে বৈজ্ঞানিক উপায়ে চাষাবাদ শুরু হয়। এতে ফলন বেড়ে যায়। কয়েক বছর ধরে পাহাড়ে বৈজ্ঞানিকভাবে আম চাষ হচ্ছে। হাজার হাজার হেক্টর পাহাড়ে চলছে আমের উৎপাদন। আমবাগানের পাশাপাশি আনারস, লেবু, লিচুসহ নানা ফলে মধুফলের ভান্ডার হয়ে উঠছে পাহাড়।
কিন্তু এসব ফল বাজারজাতে এবার সংকট তৈরি হচ্ছে। করোনা পরিস্থিতিতে আম বিক্রির সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা কতটুকু করা যাবে তা নিয়ে সংশয়ে সংশ্লিষ্টরা। বড় বড় বাগান কিংবা প্রাতিষ্ঠানিক সুবিধা আছে এমন বাগান মালিক নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় বিশেষ উদ্যোগ নিলেও ছোটখাটো মালিকরা আছেন শঙ্কায়। বর্তমানে তীব্র গরম পড়ছে। ফল পাকবে। কিন্তু এই ফল কীভাবে বিক্রি করবেন, ন্যাষ্য দাম পাওয়া যাবে কিনা তা নিয়ে উদ্বেগে তারা। পরিবেশ ও আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চলতি মৌসুমে পাহাড়ের নানা স্থানে আম্রপালি, রাংগোয়াই (মিয়ানমারের জাত), থাই এবং স্থানীয় জাতের আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। পাহাড়ে সবচেয়ে বেশি আমবাগান রয়েছে বান্দরবানে। বান্দরবান সদর, রুমা, থানচি, রোয়াংছড়ি এই চার উপজেলায় আমের বাগান বেশি। এ জেলায় মোট ৭৪০০ হেক্টর পাহাড়ে আমবাগান রয়েছে। গত বছর এসব বাগান থেকে ৭৩ হাজার টন আমের ফলন হয়েছিল। এবার ৯০ হাজার টন আম পাওয়া যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বান্দরবান কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ নাজমুল হক।
বান্দরবানের নানা স্থানে বড় বড় আমবাগানের পাশাপাশি ছোট ছোট অনেক বাগান রয়েছে। যেখানে দুই-চার টন ফলন হয়। ঢাকা ও চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীদের বড় বড় বেশ কিছু বাগানের পাশাপাশি উপজাতীয় জনগোষ্ঠীর একটি বড় অংশও বাগানের সাথে জড়িত। আগে জুমচাষ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন এমন উপজাতীয়রা এখন আমবাগান করেন। সদর উপজেলায় বম ও মারমা, থানছি উপজেলায় মারমা এবং রোয়াংছড়ি উপজেলায় মারমা ও তংচ্যংঙ্গা সমপ্রদায় আম চাষ করছেন।
রাঙামাটির পাহাড়েও প্রচুর আমের বাগান রয়েছে। এখানে সাধারণত আম্রপালি এবং রাঙ্গুলী আমের চাষ হয়। রাঙামাটির বিলাইছড়ি, মগবান, বালুখালি, কুতুকছড়ি, জিপতলী, সাপছড়ি, বাঘাইছড়ি, লংগদু, জুরাইছড়ি ও বরকল এলাকায় আমের বাগান আছে।
রাঙামাটি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পবন কুমার চাকমা দৈনিক আজাদীকে জানান, রাঙামাটিতে ৩৩৭০ হেক্টর জমিতে আমবাগান রয়েছে। এসব বাগানে এবার প্রচুর ফলন হয়েছে। আবহাওয়া ভালো থাকায় ফলন বেড়েছে। এবার অন্তত ৩৫ হাজার টন আম পাওয়া যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।
খাগড়াছড়িতেও প্রচুর আমবাগান রয়েছে। খাগড়াছড়ি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুঃ মুর্ত্তুজ আলী আজাদীকে বলেন, খাগড়াছড়িতে এবার আমের দারুণ ফলন হয়েছে। এলাকার ৩২৪৪ হেক্টর জমিতে আমবাগান রয়েছে। এসব বাগান থেকে এবার ২৯ হাজার ১৯৬ টন আম পাওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আবহাওয়া ঠিক থাকলে আমরা ৩০ হাজার টন আম পাব বলে আশা করছি।
সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, আমচাষে অল্প সময়ে ফলন পাওয়া যায়। ২/৩ বছর বয়স থেকে আমের ফলন শুরু হয়। দীর্ঘসময় পর্যন্ত টানা ফলন পাওয়া যায়। এছাড়া পার্বত্য চট্টগ্রামের মাটি আমচাষের জন্য উপযোগী। বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে নানা জাতের আমের চাষ করায় প্রতিটি বাগান এখন অতীতের তুলনায় সমৃদ্ধ। বিষমুক্ত আমের চাষ হচ্ছে পাহাড়ে-পাহাড়ে। আগামী সপ্তাহ থেকে আম আসতে শুরু করলেও ১৫ জুন থেকে পুরোদমে আম বাজারে আসতে শুরু করবে বলে কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা জানান। তারা বলেন, এখন প্রচুর কাঁচা আম বিক্রি হচ্ছে। চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা বেপারিরা কাঁচা আম কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। প্রতি কেজি দশ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। যেসব আম ঝড়ে পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে সেসব আম কাঁচা বিক্রি করা হলেও গাছে গাছে থোকায় থোকায় আম ঝুলছে। যেগুলো দিন কয়েকের মধ্যে পাকলে স্থানীয় চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি দেশের নানা স্থানে বিক্রি করা হবে। দেশের আমের চাহিদার উল্লেখযোগ্য অংশ পার্বত্য চট্টগ্রাম যোগান দেয়।
কৃষি কর্মকর্তারা বলেন, বান্দরবানে ৯০ হাজার টন, রাঙামাটিতে ৩৫ হাজার টন এবং খাগড়াছড়ির বাগান থেকে ৩০ হাজার টন মিলে ১ লাখ ৫৫ হাজার টন আম পাওয়া যাবে। প্রতি কেজি পঞ্চাশ টাকা করে হলেও এই আমের দাম প্রায় ৮০০ কোটি টাকা। তবে এবার করোনা পরিস্থিতিতে বিশাল এই বাজারের কী অবস্থা হবে তা নিয়ে শঙ্কায় কর্মকর্তারা।
এদিকে কয়েকজন বাগান মালিক গতকাল আজাদীকে বলেন, গতবারের চেয়ে ফলন অনেক ভালো হয়েছে। আম ঠিকভাবে বাজারে পৌঁছানোর ওপর তাদের ভাগ্য নির্ভর করছে। তারা বলেন, চট্টগ্রাম থেকে বেপারিরা গিয়ে আম কিনে নেন। তবে এবার বেপারিরা ঠিকভাবে যেতে পারছেন কিনা বা পরিবহন কীভাবে করবেন, বাজারে ক্রেতা থাকবে কিনা, এসব বিষয়ের ওপর পাহাড়ের হাজার হাজার মানুষের ভাগ্য নির্ভর করছে।
একাধিক আমবাগানের মালিক আজাদীকে বলেছেন, পাহাড়জুড়ে আমসহ নানা ফলের সম্ভাবনা। অথচ বাজার ব্যবস্থাপনার কারণে চাষিরা প্রকৃত মূল্য থেকে বঞ্চিত হন। তারা পাহাড়ে হিমাঘার নির্মাণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। আম পরিবহন এবং বাজারজাতকরণে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতাও কামনা করেন।

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://dainikazadi.net

করোনার কারণে গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকায় আম বাজারজাত করা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন দিনাজপুরের নবাবগঞ্জের আম চাষিরা। গাড়ি বন্ধ ও লকডাউন থাকায় পাইকারও আসতে না পারছেন না। আবার দু-একজন যা-ও আসছেন তাতে দাম মিলছে না। ফলে আমের বাগান বিক্রি করতে না পারায় উৎপাদন খরচ ওঠানো নিয়ে সংশয়ে পড়েছেন চাষিরা। এছাড়া চলতি মৌসুমে বৈরী আবহাওয়ার কারণে আমের ফলন খানিকটা কম হয়েছে। সব মিলিয়ে অনেক চাষি হতাশ হয়ে আমের পরিচর্যাই ছেড়ে দিয়েছেন।

 

 

চাঁপাইনবাবগঞ্জের পরেই এ অঞ্চলে নবাবগঞ্জে সবচেয়ে বেশি আম উৎপাদন হয়। হিমসাগর, ল্যাংড়া, হাড়িভাঙ্গা, আম্র্রপালি, আশ্বিনাসহ বিভিন্ন জাতের আম চাষাবাদ হয় এখানে। স্বাদ ও চাহিদা ভালো হওয়ায় দেশের বিভিন্ন এলাকায় আম সরবরাহ করা হয়ে থাকে।

নবাবগঞ্জ আম চাষি সমিতির সাবেক সভাপতি জিল্লুর রহমান ও আমি চাষি শফিকুল ইসলামসহ কয়েকজন বলেন, আমাদের এই অঞ্চলে যেসব আম উৎপাদন হয় তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি হয় হিমসাগর জাতের আম। এটা খেতে সুস্বাদু হওয়ায় বেশ চাহিদা রয়েছে। এছাড়াও মানুষকে নিরাপদ আম খাওয়ানোর ও বিদেশে রফতানির জন্য এখানে ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে আম চাষাবাদ করা হয়। এবারে করোনাভাইরাসের কারণে এখন পর্যন্ত তেমন কোনও পাইকার না আসায় আমের বাগানগুলো অবিক্রিত রয়ে গেছে। বৈরী আবহাওয়ার কারণে আমের ফলনও কিছুটা কম হয়েছে। তবে যেটুকু আম হয়েছে তাও বাজারজাত করা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছি। এছাড়াও চেষ্টা করেও বিদেশে আম রফতানি করা যাচ্ছে না। এ কারণে অনেক আম চাষি হতাশ হয়ে আমের পরিচর্যাই ছেড়ে দিয়েছেন। যে দু-একজন পাইকার বাগান কিনতে আসছেন তারাও বাজারজাত করা নিয়ে দুশ্চিন্তার কারণে বাগান না কিনে ঘুরে  চলে যাচ্ছেন।

আম বাগান কিনেছিলেন শেরেগুল ইসলাম ও মজিবর রহমান। তারা বলেন, বেশ কিছু আম বাগান কিনেছি। কিন্তু করোনার কারণে আমের বাজার কী হবে, বাজারজাত করতে পারবো কিনা এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি। আমি আম বাগান নিয়েছি। কিন্তু লকডাউনের কারণে যেতে দিচ্ছে না পুলিশ। বাগানে ওষুধ ছিটাতেও যেতে পারছি না। কোনোরকমে আমরা আমবাগানের পরিচর্যা করছি। তবে সামনের দিনে আমের কী হবে সেটা নিয়ে বেশ দুশ্চিন্তায় পড়েছি। প্রশাসন আম বাজারজাতকরণে একটু ছাড় দিলে আমরা একটু উপকৃত হবো। ভালো দাম পাবো বলে আশা করছি।

নবাবগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, উপজেলায় চলতি মৌসুমে ৮০৫ হেক্টর জমিতে আমের বাগান রয়েছে। যা থেকে এবারে ২৪ হাজার ১৫০ টন আম উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এখন পর্যন্ত আমের অবস্থা ভালো রয়েছে। যদি কোনও প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হয় তাহলে আশা করি ভালো ফলন পাওয়া যাবে। এখন পর্যন্ত গাছে যে আম আছে তাতে করে আশা করছি বাম্পার ফলন হবে। করোনা পরিস্থিতি একটু ভালো হলে চাষিরা তাদের উৎপাদিত আম বাজারজাত করতে পারবে ও ভালো দাম পাবে। বিদেশে আম রফতানির ব্যাপারে গতবছর ওয়ালমার্টের সঙ্গে আলোচনা করে কিছু পাঠানো সম্ভব হয়েছিল। এবারে করোনা পরিস্থিতির কারণে প্রথমদিকে তাদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছিলাম। কিন্তু এই অবস্থার কারণে এখন পর্যন্ত তাদের সঙ্গে কোনও যোগাযোগ করতে পারি নাই।

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://www.banglatribune.com

করোনা পরিস্থিতিতে আম, লিচুসহ মৌসুমী ফল এবং কৃষিপণ্য বাজারজাতকরণ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে অনলাইনে (জুম প্ল্যাটফর্মে) মতবিনিময় সভায় বক্তারা ১০ দফা সুপারিশ করেছেন। শনিবার (১৬ মে) কৃষি মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষ থেকে বাজারজাতকরণ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে এই সভা হয়।

 

সভায় কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি বেগম মতিয়া চৌধুরী, খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, নৌপরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ডা. আ ফ ম রুহুল হক, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জের সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহম্মেদ, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ, জাতিসংঘের কৃষি ও খাদ্য সংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি রবার্ট সিম্পসন  এবং কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নাসিরুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

১০ দফা সুপারিশ হচ্ছে -

১. হাওরে ধান কাটা শ্রমিকদের যেভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠানো হয়েছে, তেমনি অন্যান্য জেলা থেকে ব্যবসায়ী, আড়তদার ও ফড়িয়াদের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করা। প্রয়োজনে তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রত্যয়নপত্র প্রদান ও নিরাপদ আবাসনের ব্যবস্থা নেওয়া।

২.  মৌসুমী ফল এবং কৃষিপণ্য পরিবহণে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ট্রাক ও অন্যান্য পরিবহনের অবাধ যাতায়াত নির্বিঘ্ন করা, পরিবহণের সময় যাতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীর  মাধ্যমে কোনও ধরনের হয়রানি করা না হয় সে ব্যবস্থা করা।  

৩. বিআরটিসির ট্রাক ব্যবহারের উদ্যোগ নেওয়া।

৪. স্থানীয়ভাবে ব্যাংকের লেনদেনের সময়সীমা বাড়ানো।

৫. পার্সেল ট্রেনে মৌসুমী ফল এবং কৃষিপণ্য পরিবহণের আওতা বাড়ানো, হিমায়িত ওয়াগন ব্যহার করা যায় কিনা তা নিশ্চিত করা।

৬. ফিরতি ট্রাকের বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোল হার কমানো।

৭. ত্রাণ হিসেবে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীতে আম, লিচুসহ মৌসুমী ফল অন্তর্ভুক্ত করার জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানানো।

৮. অনলাইনে ও ভ্যানে ছোট ছোট পরিসরে কেনাবেচার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করা।

৯. প্রাণ, একমি, ব্র্যাকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং স্থানীয় প্রতিষ্ঠান যারা কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাত করে জুস, ম্যাঙ্গোবার,আচার, চাটনি প্রভৃতি তৈরি করে,তাদের এবছর  বেশি বেশি আম-লিচু কেনার অনুরোধ জানানো।

১০.  মৌসুমি ফলে যেন কেমিক্যাল ব্যবহার করা না হয় সেজন্য জেলা প্রশাসন,কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর এবং কৃষি বিপণন অধিদফতর সমন্বিতভাবে মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার করা।

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://www.banglatribune.com

ঐতিহ্যবাহী রাজশাহী অঞ্চলের আম ও লিচু নিয়ে সঙ্কটে পড়তে যাচ্ছেন রাজশাহী অঞ্চলের চাষি ও ফল ব্যবসায়ীরা। এটি বাজারজাতকরণের ক্ষেত্রে সাধারণত ট্রেন, ট্রাক ও কুরিয়ার সার্ভিস ব্যবহার করলেও করোনা পরিস্থিতিতে প্রায় সব পরিবহন বন্ধ রয়েছে। এ ছাড়াও করোনায় দেশের একটি বড় কর্মক্ষম জনশক্তি বেকার হয়ে পড়ায় আমের ক্রেতা নিয়েও রয়েছে সংশয়। ফলে বাগানে বাগানে দেখা মিলছেনা মৌসুমি ফল ব্যবসায়ীদের। এ সঙ্কট নিরসনে আজ শনিবার জনপ্রতিনিধি, বিশেষজ্ঞ, কর্মকর্তা, ফলচাষি, ব্যবসায়ীদের সাথে অনলাইনে বৈঠক করবেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক।

 

বৈঠকে আম পাঠানোর জন্য ট্রেনকে অগ্রাধিকার দেয়ার দাবি জানাবেন ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, বর্তমানে ট্রাক ভাড়া বেশি পড়বে। মালিক ও ড্রাইভার করোনা এবং রাস্তায় চেকিং নামে হয়রানির অজুহাতে বেশি ভাড়া চাচ্ছেন। কুরিয়ার সার্ভিসে এখন অন্যান্য বছরের চেয়ে চার্জ বেশি। বাণিজ্যিকভাবে আমি ও লিচু সরবরাহ করার জন্য ট্রেন চালু করলে সঙ্কট কিছুটা কমতে পারে।

 

জানা গেছে, কৃষকদের দাবির মুখে সম্প্রতি পঞ্চগড় থেকে কাঁচামাল পরিবহনের জন্য একটি বিশেষ ট্রেন চালু করা হয়েছে। একই দাবি করবেন রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জের পর আম উৎপাদনে এগিয়ে থাকা নওগাঁ, মেহেরপুর, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, সাতক্ষীরা জেলা আমচাষি ও ব্যবসায়ীরা।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ আম ব্যবসায়ী ও আড়তদার মনজুর হোসেন বলেন, বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনটি চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ছয়-সাত ঘণ্টার মধ্যে সরাসরি ঢাকা পৌঁছে যায়। যদি এই ট্রেনের সাথে আরো ৪-৫টি মালবাহী ওয়াগন সংযুক্ত করা হয় তাহলে প্রতিদিন প্রায় এক হাজার টন আম পরিবহন করা সম্ভব হবে। এ ব্যাপারে এখনই রেল মন্ত্রণালয়কে সিদ্ধান্ত নেয়া দাবি জানান তিনি।

 

আম উৎপাদনকারী অন্যান্য জেলার ব্যবসায়ীরাও চলতি বছর ট্রেনের মাধ্যমে আম সরবরাহ করার দাবি জানাবেন। কুরিয়ার সার্ভিস ও বেসরকারি ট্রাকগুলোর পরিবহন ভাড়া সহনীয় মাত্রায় রাখা এবং রাস্তায় কোনো হয়রানি না করার দাবি ও জানাবেন চাষি ও বিক্রেতারা।

 

আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জ আমচাষিরা বলছেন, গত ৩ বছর ধরে ক্রমাগত আমচাষি ও ব্যবসায়ীরা লোকসান গুনছে বিভিন্ন কারণে। যেমন আম সংগ্রহে তারিখ বেঁধে দেয়া, কারবাইড দিয়ে আম পাকানোর অভিযোগে ট্রাকভর্তি আম ধ্বংস করে দেয়া, পরিবহন ধর্মঘট, ভারত থেকে আম আমদানি করা, প্রচুর পরিমাণে আম রফতানি না হওয়া, আম সংরক্ষণে বিজ্ঞানসম্মত কোনো পদ্ধতি উদ্ভাবন না হওয়া, আম সংরক্ষেণের জন্য আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত ইথোফেন ব্যবহারকারীদের প্রশাসন কর্তৃক জরিমানা করা।

 

আমচাষিরা বলছেন, পর পর ৩ বছর লোকসান হওয়ায় চাষিরা এবার আমগাছের জন্য প্রয়োজনীয় পরিচর্যা করেনি। ফলে মাত্র ৬৪% আম গাছে মুকুল এসেছে। স্বাভাবিকভাবেই এবার আম উৎপাদন কম হবে। চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৩৩ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে ২৫ লাখ ৩৯ হাজার ৬৩০টি আমগাছ রয়েছে। এই আমই জেলার প্রায় ৮ লাখ মানুষের মধ্যে আড়াই লাখ মানুষের সারা বছরের আয় রোজগারের উৎস। এই আম মৌসুমজুড়ে কমপক্ষে প্রায় ৭০০ থেকে ৮০০ কোটি টাকার লেনদেন বা ব্যবসা হয় শুধু চাঁপাইনবাবগঞ্জেই।

 

ব্যবসায়ীরা বলছেন, করোনার কারণে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদরঘাট, রহনপুর, ভোলোহাট, চৌডালা ও কানসাটের বড় বড় আড়তগুলোতে ক্রেতা-বিক্রেতা ও মজুরদের সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে কিভাবে নির্বিঘœ হবে তা নিশ্চিত নয়। এ জন্য বাজারজাতকরণের প্রক্রিয়াটি নিয়ে চরম অনিশ্চয়তায় আছে তারা।
স্থানীয়রা জানান, এসব আড়তে বড় বড় ক্রেতারা আসেন ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, কুমিল্লা, ফেনী, চট্টগ্রাম ও সিলেট থেকে। এর মধ্যে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে করোনা সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি। তাই এ জেলা থেকে আসা পাইকারদের কিভাবে আলাদা করে চিহ্নিত করবে তা-ও বলা হয়নি প্রশাসন থেকে। পাইকারদের থাকার জন্য নির্দিষ্ট হোটেলগুলো খোলা হবে কি না তা-ও নিশ্চিত নয়।

 

ক্রেতা নিয়ে সংশয় : করোনার কারণে চলতি বছর মানুষ আম কতটুকু কিনবে তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। করোনার কারণে দুই মাসব্যাপী দেশে যে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে তাতে অন্ততপক্ষে দুই কোটি শ্রমজীবী মানুষ সম্পূর্ণ বেকার অবস্থায় রয়েছেন। এ ছাড়া গরিব ও নিম্ন মধ্যবিত্তরাও রয়েছে প্রায় দুই কোটি মানুষও অভাবগ্রস্তে। এই চার কোটি মানুষের আমের স্বাদ নেয়া তো দূরের কথা আসন্ন ঈদের খুশিও তারা অনুভব করতে পারবে না। ফলে ক্রেতা না থাকলে আম উৎপাদনকারী চাষিরা আমের উৎপাদন মূল্য পাবে কিনা সে ব্যাপারে সন্দেহ প্রকাশ করেছে আম উৎপাদনকারী চাষি ও ব্যবসায়ীরা। চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম বাগান মালিক মঞ্জুরুল হুদা বলেন, আমের উৎপাদন পরিবহন ব্যবস্থা ইতিবাচক হলেও করোনার কারণে অসংখ্য মানুষ আম কিনবে কি না তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

 

দেখা মিলছে না মৌসুমি ব্যবসায়ীদের : প্রতি বছর আম নামানোর আগে কয়েক দফায় বাগান বিক্রি হলেও এবার করোনাভাইরাসের কারণে চিত্রটা উল্টো। আম বাজারজাত করতে না পারার আশঙ্কায় বাগান মালিকদের কাছ থেকে আম কিনছেন না ব্যবসায়ীরা। এতে আম বিক্রি ও দাম নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় পড়েছেন বাগান মালিকরা।
নাটোরের বাগান মালিক আব্দুর রউফ বলেন, আগামী ২০ মে থেকে নাটোর জেলায় গাছ থেকে আম পাড়া শুরু হবে। প্রতি বছর মুকুল আসা থেকে শুরু করে আম নামানোর আগ পর্যন্ত বাগান বিক্রি হয় ৩ দফায়। তবে করোনাভাইরাসের কারণে বাগান বেচাকেনা হয়নি এবার।

 

গত কয়েক বছর ইউরোপে আম রফতানি করার একটা সম্ভাবনা তৈরি হয়। গত বছর ৬৮ মেট্রিক টন আম ইউরোপের কয়েকটি দেশে রফতানি হওয়ায় চলতি বছর রফতানির পরিমাণ বেশি হওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও করোনার কারণে তা কমে গেছে।

 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের রাজশাহী বিভাগীয় অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ সুধেন্দ্র নাথ রায় বলেন, কৃষিপণ্য উৎপাদন ও বিপণনে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। রাজশাহী অঞ্চলে আম ও লিচুর ব্যাপক ফল হয়েছে। এই ফল এখন বিপণনই আমাদের প্রধান চ্যালেঞ্জ।

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://www.dailynayadiganta.com

রাজশাহীতে ১৫ মে আম গুটিজাতের আম নামানোর কথা থাকলেও পরিপক্ব না হওয়ায় নামানো হয়নি। আমচাষি ও ব্যবসায়ীরা বলছেন, পরিপক্বতা না আসায় তারা আম নামাচ্ছেন না। আমের আঁটি শক্ত হতে আরও সপ্তাহখানেক অপেক্ষা করতে হবে।

 
 

গোপাল ভোগ, রাণী প্রসাদ, লক্ষণ ভোগ এবং হিম সাগর নামার কথা ২ জুন। এছাড়া ল্যাংড়া, আম্রপালি ও ফজলি ১৬ জুন এবং আশ্বিনা নামানো শুরু হবে ১ জুলাই থেকে। ফলে চাষিদের শঙ্কা বেড়েই চলেছে। চাষিরা সংশ্লিষ্ট জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে উদ্বেগের কথাও জানিয়েছেন।

বর্তমানে করোনার কারণে এসব মৌসুমি ফলের ক্রেতা নেই বলা চলে। পরিবহন সংকটের কারণে সারাদেশে প্রায় ৭ শতাংশ আম ও লিচুর বাগান অবিক্রিত রয়ে গেছে।

আম ও লিচু যেন সঠিকভাবে বিক্রি হয় সেজন্য সংশ্লিষ্ট অধিদফতরে যোগাযোগ করছেন চাষিরা। সঠিকভাবে সারাদেশে আম লিচু সরবরাহের জন্য অনলাইনের মাধ্যম ব্যবহারের চিন্তা করা হচ্ছে। যেন অনলাইনের মাধ্যমে সারাদেশে আম ও লিচু বিক্রি করা যায় এবং চাষিরা সঠিক দাম পান।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক শামসুল হক বাংলানিউজকে বলেন, করোনা সংকট মোকাবিলায় এবং আম-লিচু চাষিদের বাঁচাতে অনলাইনে আম ও লিচু বিক্রি করা হবে। অনলাইনে আম চলে যাবে বিকাশে চাষির কাছে টাকা চলে আসবে। ডিজিটাল ভাবে চাষির আম-লিচু বিক্রি করার জন্য সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে। বর্তমানে অনেক শিক্ষিত ছেলেরা বেকার আছে। যারা ডিজিটালভাবে অনেক সাউন্ড এদের আমরা কাজে লাগাবো।

শুধু আম নয় লিচুর ক্ষেত্রে বেশি ভয়ে আছেন চাষিরা। লিচু সাধারণত ২০ মে থেকে শুরু হয়ে ২০ জুনের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে। এই সময়ের মধ্যে করোনা সংকট থাকবে। যেমন অল্প সময়ের মধ্যেই বাজারে আসবে নারায়ণগঞ্জের কদমি লিচু। এরপরে আসবে পাতি লিচু ও চায়না-৩ লিচু।

মেহেরপুর জেলায় ডালে ডালে থোকা থোকা লিচুতে ভরে গেছে গাছ। স্থানীয় মোজাফফর জাতের সঙ্গে বোম্বাই ও চায়না জাতের লিচু চাষ এবার মেহেরপুরে বেড়ে গেছে। ডালে ডালে লিচু থাকলেও চাষির মুখে হাসি নেই।

আম-কাঁঠালের চেয়ে লাভজনক হওয়ায় মেহেরপুর জেলায় ৬২০ হেক্টর জমিতে লিচু চাষ হয়েছে। আম চাষ হচ্ছে ২৩ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে। প্রতি হেক্টর জমিতে ১৩ টন আম ও লিচু হবে সাড়ে চার টন। যা থেকে ৩৫ কোটি টাকার বেচাকেনা হবে বলে আশা করছিল কৃষি বিভাগ এবং চাষিরা। তবে করোনা ভাইরাসের কারণে মিলছে না চাষিদের সেসব হিসাব। শঙ্কার কথা চাষিরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বরাবর জানিয়েছেন।

মেহেরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ মো. কামরুল হক মিঞা বাংলানিউজকে বলেন, আম ও লিচু সারাদেশে সরবরাহের জন্য আমরা সভা করেছি।  সভায় ডিসি-এসপিসহ সংশ্লিষ্টরা ছিলেন। আম ও লিচু বহনকারী ট্রাকে ডিসি স্যারের প্রত্যায়ন পত্র থাকবে।

গত কয়েক বছর রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, পাবনা জেলার ঈশ্বরদীর লিচু ব্যবসায়ীরা লাভবান হয়। এতে বেশি দামে বাগান কিনে রাখেন ব্যবসায়ীরা। কিন্তু এবার পরিস্থিতি পুরো উল্টো। করোনা মোকাবিলায় সারাদেশে অচলাবস্থা। গ্রাম থেকে শহর সর্বত্রই দোকানপাট বন্ধ। কৃষিপণ্য বিপণন ও বিতরণে বিধিনিষেধ না থাকলেও ঘর থেকে বের হতে না পারায় এবার ফল কেনার ক্রেতা সংকটে পড়েছে। ক্রেতারা এবার আম ও লিচুর বাগানও কিনতে যাননি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রাজশাহীর মনিটরিং ও মূল্যায়ন সূত্র জানায়, আম ও লিচু নিয়ে কৃষকদের মধ্যে এক ধরনের শঙ্কা রয়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, আম উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বের মধ্যে দশম। ২ লাখ ৩৫ হাজার একর জমিতে ১২ লাখ ১৯ হাজার মেট্রিক টন আম উৎপাদন হবে।

জুন,  জুলাই ও আগস্ট এই তিন মাসে ৬০ শতাংশ ফল উৎপাদিত হয়। অথচ এই সময়ে দেশ করোনার কবলে। সুতরাং চাষিরা সমস্যায় পড়বেন। কারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতা কমে গেছে পাশাপাশি সরবরাহের একটা সমস্যা দেখা দিচ্ছে। অনেকে ভয়ে বাজারে যেতে পারছেন না। ফলে কৃষকের আম লিচু ভোক্তার হাতে পৌঁছে দিতে অনলাইন প্লাটফর্ম বেছে নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও হোম ডেলিভারি, পার্সেল সরবরাহ করার ব্যবস্থা করা হবে। চাষির আম লিচুর পাইকারি ব্যবসায়ীদের যাতায়াত ও থাকার ব্যবস্থা করা হবে। এমন সব প্রস্তাবনা প্রস্তুত করেছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হর্টিকালচার বিভাগ।

শনিবার (১৬ মে) জুম প্লাটফর্মের মাধ্যমে ‘আম-লিচু ও অন্যান্য মৌসুমি ফল বিপণন’ বিষয়ক এক অনলাইন সভা অনুষ্ঠিত হবে। কৃষিমন্ত্রী ড.  মো. আব্দুর রাজ্জাকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হবে সভা। সভায় জনপ্রতিনিধি, বিশেষজ্ঞ, কর্মকর্তা, ফল চাষি, ফল ব্যবসায়ী, আড়তদার সংযুক্ত থাকবেন। অনলাইন সভাটি পরিচালনা করবেন কৃষি সচিব মো. নাসিরুজ্জামান। অনলাইনে কীভাবে আম-লিচু বিক্রি করা যায় এই জন্য মিটিংয়ে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক সংযুক্ত থাকবেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পরিচালক (হর্টিকালচার উইং)  মো. কবির হোসনে বাংলানিউজকে বলেন, আমরা উদ্যোগ না নিলে চাষিরা আম-লিচুতে লোকসানে পড়বেন। অনলাইনে আম-লিচু বিক্রির পথ বের করবো। এছাড়াও হোম ডেলিভারি ও পার্সেল সার্ভিসের ব্যবস্থা করবো। ব্যবসায়ীরা যাতে নিরাপদে সারাদেশে মৌসুমি ফল কিনতে পারেন এই ব্যবস্থা করা হবে। প্রয়োজনে পরিবহন ও আবাসন সুবিধা দেওয়া হবে।  আম ও লিচু সারাদেশে সরকারের জন্য একটা প্রস্তাবনা তৈরি করেছি। সভায় এটা উপস্থাপন করবো। কৃষকের কষ্টের আম-লিচু ভোক্তার ঘর পর্যন্ত পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করবো। কারণ অনেক বাগান এখনো অবিক্রিত রয়েছে।

এই নিউজটির মুল লিখা আমাদের না। আমচাষী ভাইদের সুবিধার্তে এটি কপি করে আমাদের এখানে পোস্ট করা হয়েছে। এই নিউজটির সকল ক্রেডিট: https://www.banglanews24.com

সবচেয়ে কমদামে আম কিনতে চাইলে ভিজিট করুনঃ www.Fozli.com, AamBazar.com, RajshahiMango.com, Mangonews24.com. Rajshahir-am.com
সরাসরি কথা বলুন:: 01712-339955, 01612-339955, 01919-339955
 ইউটিউব চ্যানেল দেখুনঃ https://www.youtube.com/MangoRajshahi


ব্যবসা করতে চাইলে পোষ্ট টি পড়ুন: https://web.facebook.com/Fozli.com.bd/posts/1605918266223986?__tn__=K-R
ভিডিওটি দেখুন: https://web.facebook.com/Fozli.com.bd/videos/188527325543463/

Page 1 of 43