কাঁচা আমের টক-ঝাল-মিষ্টি

User Rating:  / 1
PoorBest 

বৈশাখে  কাঁচা আম উঠেছে বাজারে।  প্রবাসেও গ্রান্ড মার্ট, কোরিয়ান, টাইনীজ কিংবা ইন্ডো-বাংলার গ্রোসারী দোকানগুলিতে কাচা আম পাওয়া যায় নিয়মিত।  বৈশাখের এই গরমে টক টক আমের  শরবত,

বৈশাখে  কাঁচা আম উঠেছে বাজারে।  প্রবাসেও গ্রান্ড মার্ট, কোরিয়ান, টাইনীজ কিংবা ইন্ডো-বাংলার গ্রোসারী দোকানগুলিতে কাচা আম পাওয়া যায় নিয়মিত।  বৈশাখের এই গরমে টক টক আমের  শরবত,

ভর্তা, আচার  ,চাটনির স্বাদে পাওয়া যাবে তৃপ্তি।  কাচা আমের  রেসিপিগুলো এক নজরে দেখে নিন।

 কাঁচা আমের শরবত
উপকরণ: কাঁচা আম ৪টি, পানি ৮ কাপ, সিরাপ বা চিনি প্রয়োজনমতো, বিট লবণ ১ চা-চামচ, সরিষাগুঁড়া ১ চা-চামচ, কাঁচা মরিচবাটা আধা চা-চামচ, পুদিনাপাতা বাটা ১ টেবিল-চামচ, লবণ আধা চা-চামচ বা পরিমাণমতো।
প্রণালি: আমের খোসা ছাড়িয়ে সেদ্ধ করে ছেনে নিয়ে আঁটি ফেলে দিতে হবে। সব উপকরণ একসঙ্গে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে বরফকুচি দিয়ে পরিবেশন করতে হবে।

আম-ডাল
উপকরণ: মটর ডাল আধা কাপ, মসুর ডাল আধা কাপ, কাঁচা মরিচ ৪টি, হলুদগুঁড়া ১ চা-চামচ, লবণ পরিমাণমতো, সরিষা সিকি চা-চামচ, পেঁয়াজকুচি ২ টেবিল-চামচ, তেল ২ টেবিল-চামচ, তেজপাতা ২টি, কাঁচা আম ২টি, কারি পাউডার ১ চা-চামচ, শুকনা মরিচ ২ টেবিল-চামচ।
প্রণালি: ডাল ১ টেবিল-চামচ, পেঁয়াজ, কাঁচা মরিচ, তেজপাতা, লবণ, পানিসহ প্রেশার কুকারে ১টি সিটি তুলে অল্প আঁচে ১০ মিনিট রেখে নামাতে হবে। আম ছিলে টুকরা করে আধা কাপ পানি, সামান্য লবণ ও হলুদ দিয়ে আধা সেদ্ধ করে ডালের সঙ্গে মেশাতে হবে। তেল গরম করে শুকনা মরিচ ও সরিষা ফোড়ন দিয়ে রসুনকুচি ও পেঁয়াজকুচি দিয়ে বাদামি রং করতে হবে। পরে ডাল ঢেলে কাঁচা মরিচ ও কারি পাউডার দিয়ে কিছুক্ষণ রেখে নামাতে হবে। একটু গাঢ় করার জন্য ১ চা-চামচ চিনি দিয়ে সামান্য নেড়েচেড়ে পরিবেশন করতে হবে।

আম কাসুন্দি

উপকরণ: কাঁচা আম ৪টি, কাসুন্দি আধা কাপ, ভাজা শুকনা মরিচের গুঁড়া ২ চা-চামচ বা ইচ্ছেমতো, লবণ পরিমাণমতো, চিনি আমের টক বুঝে সামান্য, সরিষার তেল ১ চা-চামচ।
প্রণালি: আমের খোসা ছিলে আঁটি বাদ দিয়ে টুকরো করে সবজি কুরানি দিয়ে ঝুরি করে নিন। সব উপকরণ দিয়ে মাখিয়ে কিছুক্ষণ রেখে পরিবেশন করুন।
আমের অম্বল
উপকরণ: আম কুচানো ২ কাপ, পানি ১২ কাপ, হলুদগুঁড়া সিকি চা-চামচ, মরিচগুঁড়া আধা চা-চামচ, গুড় বা চিনি ২ টেবিল-চামচ বা স্বাদমতো, লবণ ১ চা-চামচ।
বাগাড়ের জন্য: তেল ১ টেবিল-চামচ, পাঁচফোড়ন টেলে গুঁড়া করা ১ চা-চামচ, রসুনকুচি ১ টেবিল-চামচ।
প্রণালি: আম, পানি, লবণ ও হলুদ দিয়ে সেদ্ধ করে নিতে হবে। ৬ কাপ আন্দাজ হয়ে এলে গুঁড় বা চিনি ও মরিচগুঁড়া দিয়ে আরও কিছুক্ষণ রান্না করে নিতে হবে। অন্য প্যানে তেল গরম করে রসুন দিয়ে নাড়তে হবে। রসুনে রং ধরলে ফোড়নগুঁড়া দিয়ে নেড়ে সেদ্ধ আমে ঢেলে দিতে হবে। অম্বল গরমের দুপুরে খাওয়ার পর খেতে অনেক ভালো লাগে।

কাঁচা আমের ভর্তা
উপকরণ: কাঁচা আম কুচি ২ কাপ, সরিষাবাটা ২ টেবিল-চামচ, ২টা কাঁচা মরিচ, লবণ স্বাদমতো, চিনি স্বাদমতো, লেবুপাতার কুচি
২-৩টা।
প্রণালি: সব দিয়ে আম মেখে নিন। ভাতের সঙ্গে তো চলবেই। খালি মুখেও খেতেও পারবেন।

আমের ঠান্ডাই
উপকরণ: সেদ্ধ আমের টুকরা ১ কাপ, চিনি স্বাদমতো, লবণ স্বাদমতো, ভাজা জিরাগুঁড়া স্বাদমতো, শুকনা মরিচ টেলে গুঁড়া স্বাদমতো, সাজানোর জন্য (গ্লাস), লেবুর রস,
বিট লবণ।
প্রণালি: লেবুর রসে গ্লাস উল্টো করে একটু ডুবিয়ে তারপর বিট লবণে ডুবিয়ে নিতে হবে। এতে গ্লাসের গায়ে লেবু, লবনের একটা প্রলেপ পড়বে। চুমুক দিলে মজার স্বাদ পাবেন।
ব্লেন্ডারে সেদ্ধ আম, লবণ, চিনি, জিরাগুঁড়া, শুকনা মরিচগুঁড়া, পানিসহ খুব করে ব্লেন্ড করে পাতলা কাপড়ে ছেঁকে খুব ঠান্ডা ঠান্ডা পরিবেশন।

আমের চাটনি
উপকরণ: কাঁচা আম সেদ্ধ ২ কাপ (কুচি), নারকেল কুরানো ১ কাপ, গুড় ২ টেবিল-চামচ বা চিনি, কাঁচা মরিচ ৪টা, সরিষা (আস্ত) ১ চা-চামচ, শুকনা মরিচ ২-৩টা, রসুনকুচি ১ চা-চামচ, লবণ স্বাদমতো।
প্রণালি: আমের কুচি লবণ পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। ১ ঘণ্টা পর খুব ভালোভাবে ধুয়ে অল্প পানিতে সেদ্ধ করে নিতে হবে। আম সেদ্ধ হয়ে এলে লবণ ও গুড় দিতে হবে। নারকেল, সামান্য লবণ, কাঁচা মরিচ, সরিষা একসঙ্গে বেটে নিতে হবে নারকেলের পানি দিয়ে। সেদ্ধ আমে নারকেলের বাটা মিলিয়ে নিতে হবে। সার্ভিং ডিশে ঢেলে নিতে হবে।
অন্য প্যানে তেল গরম করে সরিষা, রসুন ও শুকনা মরিচ ফোড়ন দিয়ে আমের ওপর দিয়ে পরিবেশন। খাওয়ার আগে মিশিয়ে নিতে হবে।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found